হাসনাবাদের গির্জা (কবিতা গত বছর নভেম্বরে লেখা )

ঢং ঢং ঘন্টা বাঁজে
গির্জার ছাঁদের কাছে
ম্যাণুয়েল সেই কবে ছিল নিজে
বেলের ঘন্টার কাজে ।
মানব দেহের শেষ কৃত্যে
ঘন্টা বাজে করুণ চিত্তে ।
পূূর্তগীজ বণিকেরা বানিয়ে জপমালার চার্চ
সতেরশ সাতাত্তরে করেছে নূতণ মার্চ !
মাদার ফাদার কত চলে গেল
ঘন্টা তবুও বাজে সকাল বিকাল
আজও জানের তাজে
স্মৃতির ঘন্টা বাজে
নাঁচে মোর হ্রদয় নিত্যের আমেজে
জানি আমি সে আজও বেঁচে আছে
পাবো তারে হ্রদয়ের কাছে ।
বিশপ গাঙ্গুলীর জীবন আলেখ্য করেছে গৌরবান্বিত
মরনেও তিনি তাই হয়েছেন মহান্বিত !
জর্জ মাস্টার বেঁচে আছেন আপণ মহিমায়
গর্ব হয় তাঁর মত স্যার ছিল আমার জমানায়
স্যার ডেনিস, যোসেফ হারিয়ে গেছে
তবুও আমি পূজি তাঁদের কাজে ।
ফুটবল খেলার মাঠে, খেলি জোটে
হিরোর নাতে হই জয়ী সাথে !
পোষ্ট অফিস আছে সেই জায়গায়
দূর দূরান্তের গ্রামে রেখেছে সেবায়
দুরু দুরু বুকে যাই গার্লস স্কুলে
শেফালী হাঁসে লাজে অবনত পরন্ত বিকেলে
নাহি পারি সহিতে
ফিরে আসি আমেরিকাতে
রেখো মনে আমারে তোমাদের স্মৃতিতে…!

নিউ ইয়র্ক

গ্রামের নাম গোল্লা (কবিতা খানি গতবছর ডিসেম্বরের ) লাবলু কাজী

বড় গোল্লা ছোট গোল্লা নহে তাহা রসগোল্লা
আমি লিখছি সে গ্রামখানির নাম গোল্লা ।
পাশে তার ইছামতি প্রবাহিত হয় ছলছল
বর্ষায় ছুটে চলে সে পাগল প্রায় , ডাকে কলকল ।
রবিবারের গির্জার মিশা বড়ই সকরুন
মৃত্যুর ঘন্টা যেমন বাঁজে , নেই তার কোন কারন !
মেয়েদের কলকাকলিতে মুখরিত গোল্লা গার্লস স্কুল
পরস্পরে বাঁধিয়াছে ডোর যাহা অন্য কোথাও বিরল ।
হিন্দু , মুসলিম খৃষ্টান এখানে পড়ে মিলেমিশে
লাল সবুজের পতাকা মিশে যায় তাদের পাশে !
ফাদার কার্নোস বানিয়ে চার্চ হয়েছেন যেমন মহান
ঊনিশ শত তেইশ সালে স্বপ্নের সৌধ দেখেছে আসমান
অনেক চড়াই উতরাই পেরিয়ে সেই পবিত্র ঘর
ঝড় ঝঞ্চা শেষে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে আছে নদীর তীর ।
ছোট কালে হলিক্রশে গোল্লার বন্ধুরা ছিল প্রাণপ্রিয়
এখনও স্মরি ওদের আমেরিকায় উকি দেয় মনের জানালায় !
ষ্টিফেন, প্যাট্রিক, বাবুল তোরা কে কোথায় হারিয়ে গেলি
আয় সখারা আয় গলায় লাগি ফের একবার সকলি
রোনাল্ড শীতল দার শত মিটার দৌড় দেখতে মজা জবর
পুরানো শত রেকর্ড ঘেটে পাইনি তার নজির ।
এডু দার হাই জাম্প দেওয়া যেন মানুষ উড়ার খেলা
পাখীর মতো উড়ে যেতো বৃথাই চেষ্টা পিছু ফেলা !
মরিছ দার কলোনারী দক্ষতা টেক্কা দেয় দেশ বিদেশে
ম্যানুয়েল দার সারভিং স্কিল খোঁজে পাবেনা অন্য দেশে !
ফুলে ফলে ভরে থাকে গোল্লার চক
ধানে গমে ভরে উঠুক আমার ভাই ধনের বুক !
এমন গ্রামখানি পেয়ে আমি বড়ই ভাগ্যবান
গর্বে বুকখানি তাই মোর গেয়ে ওঠে গান ……!

নিউ ইয়র্ক
৯/০৫/২০১৮